• ঢাকা
  • শনিবার, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২৪ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

Advertise your products here

Advertise your products here

Advertise your products here

৬ মাস পর খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ


Newsofdhaka24.com ; প্রকাশিত: সোমবার, ০৭ আগষ্ট, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১০:২৯ পিএম
খোলা সয়াবিন তেল
খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ

বাজারে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রির জন্য মাস সময় পাচ্ছে ব্যবসায়ীরা। মাস পর খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামান।

চাহিদার শতভাগ সয়াবিন তেল প্যাকেটজাত করে বিপণনের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত না থাকায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সোমবার ( আগস্ট) ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে খোলা সয়াবিন তেল বিপণন বিক্রয় বন্ধের বিষয়ে সচেতনতানূলক সভার আয়োজন করা হয়।

রাজধানীর কারওয়ানবাজারে অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় ব্যবসায়ীরা জানান, খোলা ভোজ্যতেল বাজারজাতকরণ বন্ধের বিষয়ে তারা একমত। কিন্তু ব্যবসায়ীদের যে সক্ষমতা রয়েছে তাতে শতভাগ ভোজ্যতেল প্যাকেটজাত করে বিপণনের ক্ষেত্রে তারা প্রস্তুত না। সেজন্য তারা সরকারের এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে আরো সময় দাবি করেন।

এর প্রেক্ষিতে ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামান বলেন, আমরা সকলের সমন্বয়ে সচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে বাজারে সম্পূর্ণরূপে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি বন্ধ করতে চাই। ব্যবসায়ীরা খোলা বাজারে ভোজ্যতেল বিক্রি বন্ধের জন্য আরো সময় চান। ব্যবসায়ীরা বলছেন, শতভাগ প্যাকেটিং করার জন্য এখনও তারা পুরোপুরি প্রস্তুত নন। তবে মাসের মধ্যে খোলা বাজারে সয়াবিন তেল বিক্রি বন্ধ করে দেওয়া হবে।

সফিকুজ্জামান আরো বলেন, ২০১৩ সালের আইনে ভোজ্যতেলে ভিটামিনঅন্তর্ভুক্তকরণের বিষয়টি সম্পৃক্ত করা হয়। ছাড়া ২০১৯ সালের আইনে ভোজ্যতেল প্যাকেট বা বোতলজাত করার বিধান রাখা হয়েছে। এর জন্য গত ৩১ জুলাই পর্যন্ত সময় নির্ধারিত ছিল। সময়ের মধ্যে ভোজ্যতেল প্রস্তুত বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান শতভাগ বোতলজাত প্যাকেটজাত করতে পারেনি।

তিনি বলেন, খোলা সয়াবিন তেলে ভেজাল দেওয়া হচ্ছে।

ছাড়া পাম তেল সয়াবিন বলে বিক্রি হচ্ছে। এতে করে ক্রেতারা কেজিতে ২০ টাকার ওপরে দাম দিতে বাধ্য হচ্ছে। প্রতারিত হচ্ছেন। অবস্থায় আইনটি বাস্তবায়নের বিকল্প নেই।

খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি বন্ধে এর আগেও একাধিকবার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তা কার্যকর করা যায়নি। নিয়ে অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, খোলা তেলের ড্রামগুলো বেশিরভাগই কেমিক্যালের ড্রাম। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকিও আছে। এসব ড্রামে তেলাপোকা, ইঁদুর পাওয়া যাচ্ছে। এজন্য পাম সয়াবিন তেল বোতলজাত করতে হবে। কেননা ইতোপূর্বে তিনবার ব্যাপারে তারিখ পেছানো হয়েছে।

৩১ জুলাই সয়াবিন পুরোপুরি বোতলজাত করার সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। তবে শতভাগ বোতলজাত সয়াবিন তেল বাজারজাতে আরো সময় লাগবে উল্লেখ করে সভায় সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তী বলেন, <

Newsofdhaka24.com / News

অর্থনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ