• ঢাকা
  • সোমবার, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

Advertise your products here

Advertise your products here

Advertise your products here

জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২২ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত


Newsofdhaka24.com ; প্রকাশিত: শনিবার, ২৩ জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৪১ পিএম
মৎস্য সপ্তাহ

আবু রায়হান, জয়পুরহাটঃ “নিরাপদ মাছে ভরবো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২২ উপলক্ষে জয়পুরহাটে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে আক্কেলপুর উপজেলা মৎস্য অফিসের আয়োজনে শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাবিবুল হাসান এর সভাপতিত্বে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মত বিনিময় সভায় উপজেলার সকল মৎস্যচাষী, মৎস্যজীবী, আড়ৎদার, মৎস্য ব্যবসায়ীসহ মৎস্য সেক্টরের সাথে জড়িত সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা মৎস্য অফিসার রতন চন্দ্র সাহা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে সামাজিক আন্দোলনে রুপ দেওয়ার শুভ সুচনা করেছিলেন। ওই সময় বঙ্গবন্ধু ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন- “মাছ হবে এ দেশের দ্বিতীয় প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী সম্পদ।” জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী ও প্রাজ্ঞ নেতৃতে মৎস্যবান্ধব বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণের ফলে বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন আজ সফল হয়েছে। এর ফলে একদিকে যেমন দেশ আজ মাছে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ায় সাধারণ মানুষ স্বল্পমূল্যে মাছ ও পুষ্টি পাচ্ছে; অন্যদিকে দেশে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব দূর হচ্ছে।

আজ বাংলাদেশে তৈরী পোশাক শিল্পের পরই মৎস্য ও মৎস্যজাত দ্রব্য সর্বাধিক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে। শুধু তাই নয় গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর আমিষের ৬০ শতাংশ যোগান দেয় মাছ। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ এখন মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। মৎস্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুয়ায়ী, ২০২০-২১ অর্থ বছরে মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৫.৫২ লক্ষ মেট্রিক টন। মাছ উৎপাদন হয়েছে ৪৬.২১ লক্ষ মেত্রিক টন। ১৯৮৩-৮৪ অর্থবছরে মাছের মোট উৎপাদন ছিল ৭.৫৪ লাখ মেট্রিক টন। ৩৮ বছরের ব্যবধানে ২০২০-২১ অর্থবছরে এই উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৪৬.২১ লাখ মেট্রিক টন। অর্থাৎ, এই সময়ের ব্যবধানে মোট মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ছয় গুণ। সরকারের বাস্তবমুখী কার্যক্রমের ফলে বাংলাদেশ এখন মাছ উৎপাদনে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ১২ শতাংশের অধিক এ সেক্টরের বিভিন্ন কার্যক্রমে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে নিয়োজিত থেকে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছে।

মৎসজাত উৎস্য থেকে প্রাণীজ আমিষের চাহিদা পুরণ, দারিদ্র্য বিমোচন ও রপ্তানি আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে বর্তমান সরকার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে। মৎস্য খাতের এ অনন্য সফলতা ধরে রাখার লক্ষ্যে সরকার বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। এগুলো হলো- জাটকা সংরক্ষণ ও ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ জলাশয়ের আবাসস্থল উন্নয়ন ও প্রাকৃতিক প্রজননক্ষেত্র সংরক্ষণ, পরিবেশ বান্ধব চিংড়ি চাষ সম্প্রসারণ, সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের সহনশীল আহরণ, উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা এবং স্বাস্থ্যকর ও নিরাপদ মাছ সরবরাহ এবং মৎস্য ও মৎসজাত পণ্য রপ্তানি।

মত বিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারন কর্মকর্তা মোশফিকুর রহমান, উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারন কর্মকর্তা (এনএটিপি-২) রহিমা সুলতানা, ক্ষেত সহকারী (এনএটিপি-২) হারুন অর রশিদ, অফিস সহকারী মাহমুদল হাসান, উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মীর আতিকুজ্জামান মুনসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিকস মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। তারিখঃ ২৩.০৭.২০২২ ইং মোবাঃ ০১৯১৯৬১৭০৮০।

Newsofdhaka24.com / নিজস্ব প্রতিবেদক

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ