• ঢাকা
  • শনিবার, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৩ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

Advertise your products here

Advertise your products here

Advertise your products here

শ্রীলঙ্কার কাছে হার দিয়ে শুরু এশিয়া কাপ বাংলাদেশের


Newsofdhaka24.com ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ০১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১২:০০ এএম
বাংলাদেশ

হার দিয়ে এশিয়া কাপ অভিযান শুরু করল বাংলাদেশ। ব্যাটিং ব্যর্থতায় শ্রীলঙ্কার কাছেউইকেটে হেরে গেল সাকিব আল হাসানের দল। 

পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ গুটিয়ে যায় ১৬৪ রানে। লঙ্কানরা জিতে যায় ৬৬ বল বাকি রেখে। 

শ্রীলঙ্কার মূল বোলিং আক্রমণের চারজন চোটের কারণে খেলতে পারছেন না এই আসরে। কিন্তু অন্যরাই ধসিয়ে দেন বাংলাদেশের ব্যাটিং। ৩২ রানেউইকেট নেন তরুণ পেসার মাথিশা পাথিরানা, দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১৯ রানেউইকেট নেন স্পিনার মাহিশ থিকশানা। 

বাংলাদেশের ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে দলের অর্ধেকের বেশি রান একাই করেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তিনে নামা ব্যাটসম্যান খেলেন ১২২ বলে ৮৯ রানের ইনিংস। রান তাড়ায় শ্রীলঙ্কা শুরুতে নড়বড়ে থাকলেও পরে সাদিরা সামারাউইক্রামা চারিথ আসালাঙ্কার ফিফটিতে জিতে যায় বেশ সহজেই। 

বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের নতুন দফার দায়িত্ব শুরু হলো পরাজয় দিয়ে। 

বাংলাদেশের বিপদ শুরু হয় ম্যাচের শুরু থেকেই। মোহাম্মদ নাঈম শেখ তানজিদ হাসানের উদ্বোধনী জুটি ভেঙে যায় দ্রুতই। দ্বিতীয় ওভারেই থিকশানার দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে অভিষিক্ত তানজিদ ফেরেন শূন্য রানে। 

আরেক ওপেনার নাঈম তিনটি আলগা বল পেয়ে ড্রাইভ করে বাউন্ডারি মারেন বটে, তবে কয়েকটি আলগা বল কাজে লাগাতে ব্যর্থও হন। তাতে নিজের ওপরও চাপ নিয়ে নেন। সেই চাপ সরাতেই অষ্টম ওভারে ধানাঞ্জয়া ডি সিলভাকে তেড়েফুঁড়ে মারার চেষ্টায় তিনি বিলিয়ে আসেন উইকেট। 

২৩ বলে ১৬ রানে ফেরেন নাঈম। ওয়ানডেতে আগের তিন ইনিংস মিলিয়ে তার রান ছিল ১০ 

একটু পর পাথিরানার বলে সাকিব যখন আলগা শটে বিদায় নিলেন কিপার কুসাল মেন্ডিসের দারুণ ক্যাচে, বাংলাদেশ তখন বেশ বিপদে। একাদশ ওভারে দলের রানউইকেটে ৩৬

সেখান থেকে জুটি গড়ে দলকে উদ্ধারের চেষ্টা করেন শান্ত তাওহিদ হৃদয়। ধীরস্থির ব্যাটিংয়ে দলকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন দুজন।রানে ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যাওয়া শান্তর ফিফটি আসে ৬৬ বলে।

৮৯ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

৮০ বলে ৫৯ রানের এই জুটি ভাঙে হৃদয়ের বিদায়ে। 

ব্যাটিংয়ের শুরুটা সাবলিল করলেও পরে ছন্দ হারিয়ে ফেলেন হৃদয়। ৪১ বল খেলেও বাউন্ডারি মারতে পারেননি তিনি। আউট হন ২০ রান করে। 

এরপর আর উল্লেখযোগ্য কোনো জুটি গড়ে ওঠেনি। মুশফিকুর রহিমের শুরুটা স্বচ্ছন্দে হলেও উইকেট হারান তিনি পাথিরানাকে আপার কাট খেলে। 

এরপর এক প্রান্ত রাখে রাখেন শান্ত, আরেক প্রান্তে দাঁড়াতে পারেননি কেউই। শেষব্যাটসম্যানের একজনও দুঅঙ্ক ছুঁতে পারেননি। 

শান্ত সেঞ্চুরির সুবাস পেলেও থিকশানার অসাধারণ এক ডেলিভারিতে শেষ হয়েNewsofdhaka24.com / News

খেলা বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ